শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:৪৮ পূর্বাহ্ন
Logo

সদরের রাজনীতি ছাড়ার ঘোষণায় ইরাকে তুমুল সংঘর্ষ, নিহত ৩০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক / ২৪ বার
আপডেট : মঙ্গলবার, ৩০ আগস্ট, ২০২২

ইরাকে বছর ধরে চলা রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা এবার তুমুল সংঘর্ষে রূপ নিয়েছে। প্রভাবশালী শিয়া নেতা মুকতাদা আল সদরের সমর্থক, ইরান সমর্থিত শিয়া রাজনৈতিক গোষ্ঠী এবং নিরাপত্তাবাহিনীর সংঘর্ষে অন্তত ৩০ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে আল জাজিরা। সূত্রের বরাত দিয়ে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যমটি জানিয়েছে, এক রাতের সংঘর্ষে কমপক্ষে ৭০০ জন গুরুতর আহত হয়েছেন।

সোমবার (২৯ আগস্ট) রাজনীতি ছাড়ার ঘোষণা দেন মুকতাদা আল সদর। এর পরপরই তার সমর্থকরা রাজধানী বাগদাদে সহিংস বিক্ষোভ শুরু করে। সোমবার রাতভর বাগদাদের রাস্তায় গুলাগুলি ও বোমা বিস্ফোরণ হয়। রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে মিলিশিয়া যোদ্ধাদের লড়াই চলে।

মুকতাদা আল সদর সব পক্ষকে সংঘর্ষ বন্ধের আহ্বান জানিয়েছেন। এক ঘোষণায় সদর জানিয়েছেন, সহিংস সংঘর্ষ না থামা পর্যন্ত অনশন ধর্মঘট চালিয়ে যাবেন তিনি।

শহরের গ্রিন জোনে সবচেয়ে ভয়াবহ সহিংস ঘটনা ঘটে। গ্রিন জোনে সরকারি বিভিন্ন দফতরের কার্যালয় এবং বিদেশি দূতাবাস অবস্থিত। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা গেছে, গ্রিন জোনে ভারী অস্ত্র যেমন মেশিন গান ও রকেট প্রপেল্ড গ্রেনেড ব্যবহার করছে মিলিশিয়ারা।

এদিকে ইরাকে এমন অস্থিরতার প্রতিক্রিয়ায় ইরান দেশটির সঙ্গে সকল সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছে। অপর প্রতিবেশী কুয়েত ইরাকে অবস্থানরত নাগরিকদের অবিলম্বে দেশটি ত্যাগ করার আহ্বান জানিয়েছে।

ইরাকে নিযুক্ত কানাডার রাষ্ট্রদূত গ্রেগরি গ্যালিগান চলমান সংঘর্ষের ব্যাপারে টুইটারে উদ্বেগ জানিয়ে বলেন, পরিস্থিতি খুবই বিপজ্জনক এবং দ্রুত নিয়ন্ত্রণের বাইরে যেতে পারে। কানাডা সব পক্ষকে দ্রুত উত্তেজনা কমিয়ে ইরাকি নাগরিকদের সুবিধার জন্য মতপার্থক্য নিরসনের পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছে।

গত বছরের অক্টোবরে ইরাকের জাতীয় নির্বাচনে মুকতাদা আল সদরের জোট বেশিরভাগ আসনে জেতে। ইরানপন্থী শিয়া রাজনৈতিক গোষ্ঠীগুলোকে বাইরে রেখে একটি সরকার গঠনের চেষ্টা করেছিলেন তিনি। তবে শেষ পর্যন্ত তিনি সরকার গঠন করতে পারেননি। বর্তমানে ইরাকে নির্বাচিত কোনো সরকার নেই।

গত জুনে মুকতাদা আল সদর ইরাকের পার্লামেন্ট থেকে তার নিজ দলের আইনপ্রণেতাদের পদত্যাগের নির্দেশ দেন। জুলাইয়ের শেষ দিকে মুকতাদা আল সদরের সমর্থকরা ইরাকের পার্লামেন্ট ও সরকারি ভবনগুলো দখল করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। এতে দেশটির নতুন প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের প্রক্রিয়া থেমে যায়। সোমবার ৪৮ বছর বয়সী এই শিয়া নেতা রাজনীতি ছাড়ার ঘোষণা দিলে রাজনৈতিক অস্থিরতা তুঙ্গে উঠে।


আপনার মতামত লিখুন :

এখানে লিখুন:

এ জাতীয় আরো সংবাদ